আসছে বুলবুল আহমেদ জয়ের ‘তৃষাতুর’

0
83

বিনোদন প্রতিবেদক : প্রাপ্তিতে সুখ, প্রাপ্তিতে শান্তি। এটাই জীবনের অর্জন। জিততে হবে পেতে হবে। ওটাই অর্জনের স্বস্তি। ইহলোক কিংবা পরলোক আপন স্বর্গে জয়ের লোভ তাড়া করা সময়। ধর্ম থেকে কর্ম, দু’ই আজ প্রাপ্তির উপকরণ অর্জনের সামগ্রী। নিবেদিত প্রাণটা অলৌকিক। অতৃপ্ত তৃষ্ণার অস্থিরতা সমাজের কিছু মানুষের।

স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তৃষাতুর’ সেই প্রাপ্তি আকাঙ্ক্ষার একটি প্রতিচ্ছবি। ‘তৃষাতুর’ মূলত লোভ লালনের পরিণতির ছবি। ডিজিটাল ফরমেটের চলচ্চিত্রটিতে বলার চেষ্টা করা হয়েছে, আমাদের প্রতিদিনকার যে চর্চা ধর্ম ও কর্ম নিয়ে সেটা মূলত একান্ত নিজের প্রাপ্তির স্বপ্ন থেকে। আপন প্রাপ্তির স্বপ্ন অন্যের উপর কি প্রভাব পরবে সেটা অনেক সময়ই ভাবা হয় না।

যেকোন মূল্যে চাই, পেতে হবে। কারও জন্য কিছু করা বা সমষ্টিগত চিন্তা থেকে বের হয়ে ব্যক্তি কেন্দ্রিক প্রাপ্তিতে সুখ খোজার সংস্কৃতি তৈরি হয়েছে। আসলে সমাজ এখন আজব বস্তুবাদী ভাবনায় বিশ্বাসী। আমাদের ধর্ম ও কর্ম ভাবনায় আধ্যাত্মিক আর বস্তুবাদের এক অদ্ভুত মিশ্রণ চলছে।

এমনই এক লোভ লালনের কাল্পনিক চরিত্র কবীর সরোয়ার। বিশ বছর আগের ঘটে যাওয়া ঘটনার দায় বয়ে বেড়ানো এই মানুষটির এক রাতের স্বপ্ন ‘তৃষাতুর’। নিজের সাথে নিজের এক মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ। তার স্বপ্নে আরও ভেসে বেড়ায় হারিয়ে ফেলা স্ত্রী, সন্তান সহ পাপ-পুণ্যে লালন করা নানা অস্তিত্ব।

আঠাইশ মিনিটের ডিজিটাল ফরমেটের স্বল্পদৈর্ঘ্যটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন এন এস এম মঈনুল হাসান সজল। প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন বুলবুল আহমেদ জয়।

এছাড়া নুসরাত রাইসা, সাঈদ রিংকু, সুকন্যা আমীর, রিফাত রহমান রাখী, শাহিনুর আক্তার প্রীতি, আনোয়ার শামীম, এম ফাহিম ফয়সাল স্মরণ, ফয়সাল মাহমুদ, জুয়েল ইসলাম, হাসান রবিন, শহিদুল আহমেদ রোহান, মো: মেহেদী পারভেজ।

LEAVE A REPLY

4 × five =