এস এম জাকির হোসাইন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক ছাত্র রাজনীতির এক আলোকবর্তিকা

0
2176

নিউজ ডেস্ক : প্রগতিশীল রাজনীতির পাটশালা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সবচেয়ে মেধাবী ও সৃজনশীল নেতা সিলেট রত্ন এস এম জাকির হোসেন স্কুলজীবন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্ররাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। পরে এই মেধাবী ছাত্রনেতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাতালিকায় প্রথমদিকে স্থান করে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে সক্রিয় রাজনীতিতে অংশ গ্রহন করেন।

ছাত্রলীগের একজন কর্মটি ও মেধাবী কর্মি হিসাবে সমাদৃত হোন ক্যাম্পাসে। ছাত্রলীগের প্রতিটি সংগ্রাম ও আন্দলনে জড়িত থেকে যায়গা করে নেন ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের মনে। তারই ফলস্বরূপ জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থা অর্জন করে বঙ্গবন্ধুর নিজহাতে গড়া উপমহাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন ছাত্রসংগঠন গৌরব, ঐতিহ্য ও সংগ্রামের ধারক ও বাহক বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৮তম জাতীয় সম্মেলনে। সারাদেশ থেকে আগত কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ছাত্রদের মধ্যে থেকে নেতৃত্ব বিকাশের পথ উন্মুক্ত রেখেছেন বলেই আমরা জাকির হোসাইন ভাইয়ের মত একজন মেধাবী ছাত্রনেতা এমন ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠনে পেয়েছি। যা আমাদের মত কর্মিদের কাছে আমরণ গৌরবের ও উৎসাহের হয়ে থাকবে। প্রিয় নেতার একমাত্র আদর্শ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মূল অনুপ্রেরনা হলেন বিশ্বজয়ী নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা। তিনি প্রিয় নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত ছুটে বেড়ান।দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাত কে শক্তিশালী করতে দিন রাত পরিশ্রম করেন। মিছিল, মিটিং, স্লোগান, নির্বাচনী সমাবেশ, সহ সকল ধরনের সাংগঠনিক কার্যক্রমে প্রিয় এস এম জাকির হোসাইন ভাইয়ের এর উপস্থিতি শতভাগ।

তিনি একজন অনলবর্ষী বক্তা; বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার কথা তার মুখ থেকে শুনতে ছাত্ররা মন্ত্র মুগ্ধের মত দাড়িয়ে থাকে। প্রিয় এই নেতা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করার পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মধুর ক্যান্টিনে সম্পূর্ণ রুপে ধুমপান নিষিদ্ধ করে আমাদের উপহার দিয়েছেন একটি ধুমপান মুক্ত ক্যাম্পাস, শিক্ষাঙ্গনের পরিবেশকে আরো সুন্দর করে গড়ে তুলতে নিষিদ্ধ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাগানো সব ধরনের পোস্টার ফেস্টুন ও ব্যানার, প্রিয় এই নেতার নেতৃত্বে সারা দেশে ১০ লক্ষের ও বেশি বৃক্ষ রোপন করে নতুন এক ইতিহাস তৈরি করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ,দেশের বিভিন্ন জেলায় মানুষ যখন বন্যার কবলে ছিল তখন প্রিয় এই নেতার নির্দেশে ছাত্রলীগের কর্মীরা নিজেরা রান্না করে বন্যার্তদের মাঝে খাবার বিতরণ করেছে জণদুর্ভোগ কমাতে কোমড়ে গামছা বেঁধে কোদাল হাতে মাটি কাঁটায় ও নেমেছে, প্রিয়নেতা বলেন ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের মনে রাখতে হবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শুধুমাত্র ছাত্রদের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগঠন নয়। ছাত্রলীগ এদেশের সকল মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকার আদায়ের প্লাটফর্ম।আগামী দিনের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মোকাবেলা করতে তোমাদেরকে প্রধান ভূমিকা পালন করতে হবে।

আরও বলেন, সোনার বাংলা বিনির্মাণের কর্মী গড়ার পাঠশালা হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বিদ্যার সঙ্গে বিনয়, শিক্ষার সঙ্গে দীক্ষা, কর্মের সঙ্গে নিষ্ঠা, জীবনের সঙ্গে দেশপ্রেম এবং মানবীয় গুণাবলির সংমিশ্রণ ঘটিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে দূর্বার গতিতে এগিয়ে যেতে হবে,জাতির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষে প্রিয় নেতার দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে শোনা যায় “মাদকাসক্ত ও সন্ত্রাসীদের জায়গা ছাত্রলীগে হবে না। ছাত্রলীগ সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত আদর্শ সংগঠন। এখানে বহিরাগত কেউ অনুপ্রবেশ করে যেন সংগঠনের কোন ক্ষতি করতে না পারে সেদিকে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের সতর্ক থাকতে হবে, আর যারা নতুন ছাত্রলীগ করতে চায় তাদের বলে দিবেন অন্যান্য ছাত্রসংগঠনের মতো এখানে অস্ত্রের যুদ্ধ হয় না ।এখানে হয় মেধার যুদ্ধ। যারা মেধার যুদ্ধ করতে চায় তাদের জন্য ছাত্রলীগের দরজা খোলা। ছাত্রলীগে মেধা নামক অস্ত্রের ব্যবহার হয়” আমার রাজনৈতিক জীবন ধন্য এমন একজন অতি সাধারন, সজ্জন, প্রজ্ঞাবান মেধাবী ছাত্রনেতার কর্মী হতে পেরে।

লেখকঃ-মওদুদ আহমদ আকাশ, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক, সিলেট জেলা ছাত্রলীগ।

LEAVE A REPLY

12 + 13 =